সিদ্ধেশ্বরী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে ম্যানুয়াল হুইলচেয়ার লিফট স্থাপন

সিদ্ধেশ্বরী বালক উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অধ্যায়ণরত হুইলচেয়ার ব্যবহারকারী মস্তিষ্ক পক্ষাঘাত প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী কে. এম. সিয়াম ফারজিন অনয় ষষ্ঠ শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হওয়ার পরে সে বছর তার শ্রেণীকক্ষ নিচতলা থেকে দোতলায় পরিবর্তিত হওয়ায় সিঁড়ি দিয়ে উঠা নামার সমস্যা দেখা দেয়।  তার পিতা জনাব কে. এম. সিয়াম মোবারকউল্লাহ শিমুল এর বি-স্ক্যান এর কাছে আবেদনের প্রেক্ষিতে এবং তারই আর্থিক সহযোগিতায় বিদ্যালয়ে বি-স্ক্যান একটি হুইলচেয়ার ম্যানুয়াল লিফট নির্মাণের উদ্যোগ নেয়।

শারীরিক প্রতিবন্ধী ছাত্রের শিক্ষার পথ সুগম করতে এই লিফট নির্মাণে কারিগরি সহযোগিতার ব্যবস্থা করে বি-স্ক্যান। কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এই ধরণের লিফট স্থাপন এটাই প্রথম। ৯ মার্চ, ২০১৪ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের আন্তরিক ইচ্ছা ও সহযোগিতায় শারীরিক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য দোতলা পর্যন্ত প্রবেশগম্যতা নিশ্চিতের এই ব্যবস্থাটি উদ্বোধন করেন স্বনামধন্য লেখক, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এর ইলেক্ট্রিক্যাল এবং ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগীয় প্রধান ও বি-স্ক্যান এর অন্যতম উপদেষ্টা শ্রদ্ধেয় ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল ।

ম্যানুয়েল লিফটটি নির্মাণে কারিগরী সহযোগিতা দিয়েছেন মহিউদ্দিন বাবুল। যিনি নিজেও একজন হুইলচেয়ার ব্যবহারকারী ব্যক্তি এবং স্পাইনাল কর্ড ইঞ্জুরিস ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশেন বাংলাদেশ (সিডাব )  এর সভাপতি।

কানাডা প্রবাসী বাংলাদেশী কালচারাল অরগানাইজেশন সঞ্চারীর প্রয়াত সভপতি এবং অন্যতম সমাজসেবী রীনা হক এর নামে ছোট্ট একটি তহবিল পরিচালনা করছেন, যেখান থেকে লিফট পর্যন্ত যেতে দুটি র‍্যাম্পও তৈরি করে দেয়া হয়।

অবশেষে জাতীয় জাদুঘরে প্রবেশগম্যতা নিশ্চিত হলো

অবশেষে জাতীয় জাদুঘরে প্রবেশগম্যতা নিশ্চিত হলো

বি-স্ক্যান এর দীর্ঘ প্রচেষ্টার প্রায় আড়াই বছর পর নিশ্চিত হলো জাতীয় জাদুঘরে সর্বজনীন প্রবেশগম্যতা।

মিরপুর জাতীয় স্টেডিয়ামে বসে প্রতিবন্ধী মানুষের ক্রিকেট উপভোগ

মিরপুর জাতীয় স্টেডিয়ামে বসে প্রতিবন্ধী মানুষের ক্রিকেট উপভোগ

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বি-স্ক্যান এর পক্ষ থেকে ৮ ডিসেম্বর, ২০১২ এ অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ এর